করোনা মহামারী কি? আর এই মহামারী শেষ কবে । Ending Date Of Corona Virus - Astro Luck

Breaking

April 14, 2020

করোনা মহামারী কি? আর এই মহামারী শেষ কবে । Ending Date Of Corona Virus

আমরা ছোটবেলা থেকেই ঠাকুমা, দিদিমা বা দাদুর কাছে অনেক বারই কিছু মহামারীর ঘটনা শুনেছি। সেই সময়ের মানুষ বিশাল বড়ো এক সংকট সময়ের মধ্যে দিয়ে নিজের এবং নিজের পরিবারকে কি করে বাঁচিয়ে নিয়ে এসেছিল তার গল্প আমাদের কাছে এক শিহরণ তৈরী করে। কিন্তু মহামারী নামক মৃত্যুলীলা আগে একবারি হয়নি, তা আমাদের পৃথিবীতে বার বার ফিরে এসেছে। কিন্তু সব কিছুর মধ্যে অবাক করা একটি বিষয় হলো এই মহামারী প্রতি ১০০ বছর অন্তর ফিরে আসে আমাদের পৃথিবীতে এবং বিপুল পরিমাণে মৃত্যুলীলা চালায়।

যদি আমরা ইতিহাসের পাতায় চোখ রাখি দেখবো, ১৭২০ প্লেগ মহামারীতে সারা বিশ্বে বহু মানুষ মারা যায়। এরপরে ১৮২০ সালে সারাবিশ্ব কলেরা মহামারীর শিকার হয়। তখনো সারাবিশ্বে এই মহামারীতে বহু মানুষ মারা যায়। এর পরে ১৯২০ সালে স্প্যানিশ-ফ্লু নামে আবার এক মহামারী পৃথিবীর বুকে ফিরে আসে, এবং এতেও বহু লোক মারা যায়। এবারে আবার ১০০ বছর পরে ২০২০ তে ফিরে এলো মহামারী যার নাম করোনা মহামারী। চীন দেশ থেকে এই মহামারী সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। আমার দেখেছি সেই মৃত্যুলীলা এখনও পর্যন্ত চলছে। সারা দেশ ও জীবন যেনো থমকে দাঁড়িয়ে গেছে এই মহামারী কাছে। এই মহামারী শেষ কবে তা আজ বড়ো বড়ো গবেষকেরা ও ডাক্তাররা বলতে পারছেন না। কিন্তু আমাদের জ্যোতিষ শাস্ত্রে এর  একটা আভাস পাওয়া যাচ্ছে, যে কবে মুক্তি পাবে এই মানব সমাজ মহামারী থেকে। 

এবারে জ্যোতিষ শাস্ত্রের ভাষায় আমরা জেনেনি এই করোনা নামক মহামারী কতো দিন আমাদের মধ্যে থাকবে। সারা বিশ্বের জ্যোতিষবিদেরা এই করোনা নামক মহামারী জন্যে দায়ী করছেন ২৬শে ডিসেম্বর ২০১৯ এর সূর্যগ্রহণকে। পাশাপাশি এই সময়ে রাশি চক্রে ধনু রাশিতে ছয়টি গ্রহ- বৃহস্পতি, কেতু, চন্দ্র, বুধ, রবি, শনি একসাথে অশুভ যোগ সৃষ্টি করার কারণে পৃথিবীতে জীবাণু সংক্রমণ শুরু হয়েছে। আমরা জানি বা মা-ঠাকুমারা বলতেন গ্রহনের সময় সব খাবারে তুলসী গাছের পাতা দিয়ে রাখতে জীবাণু নষ্ট হয়। তথ্যটা একদমই ঠিক ২০১৯ সালে ডিসেম্বর মাসে ঠিক সূর্য গ্রহণের সময় এই মারক জীবাণু সংক্রমণ হয় মানব দেহে, আর চীন দেশের বাদুর থেকে যা ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে মহামারী আকার নিয়ে। কিন্তু আমরা জানি এই বিশ্ব জগতে কোনো কিছুই অবিনশ্বর নয়। সূর্য গ্রহণ ও পাশাপাশি কেতু দ্বারা এই মহামারী ছড়িয়েছে বলে সকল জ্যোতিষবিদের ধারণা।

জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে ১৪ই এপ্রিল ২০২০ শেষ হতে শুরু হবে করোনা নামক ভাইরাস। গত মাসের রাশি চক্রে রবির অবস্থান খারাপ থাকার কারণে বিশ্বে মৃত্যুরহার বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু ১৪ ই এপ্রিল সূর্য মীন রাশি থেকে মেষ রাশিতে প্রবেশ করেছে এবং সূর্য বর্তমানে
অশ্বিনী নক্ষত্রে থাকবে। এর ফলে সূর্য উচ্চ স্থানগত ও আরোগ্য নক্ষত্র অশ্বিনী নক্ষত্রের প্রভাবে করোনা নামক মহামারী পৃথিবী থেকে নির্মূল হওয়া শুরু হয়ে যাবে মনে করা হচ্ছে। এরপর থেকে সূর্য মেষ রাশিতে যতো ডিগ্রি প্রবেশ করবে করোনা ভাইরাস মানব দেহ ও পৃথিবী থেকে দূরে সরে যাবে। জ্যোতিষশাস্ত্রের মতে এই সময়ে বিশেষজ্ঞরা এই করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক খুঁজে পেয়ে যাবেন।

এর পরে ৪মে ২০২০ মঙ্গল মকর-রাশি ছেড়ে কুম্ভ-রাশিতে প্রবেশ করবে সেই মুহূর্ত থেকে করোনা ভাইরাসের শক্তি সম্পূর্ণনষ্ট হাওয়া শুরু হয়েযাবে। সকল জ্যোতিষ পণ্ডিতের মতে এবং বিশ্বাস যে করোনা ভাইরাস গ্রহের দ্বারাই সৃষ্টি হয়েছে, আর গ্রহরাই একে নির্মূল করেদেবে। অতীতে ও মানব জীবনে আজ অবধি যা যা অশুভ প্রভাত পড়েছে সবই গ্রহ ও নক্ষত্রের খেলা। ২৬শে ডিসেম্বর ২০১৯ যে সূর্যগ্রহন এই মহামারীকে জন্ম দিয়েছে, ঠিক একই ভাবে ২১ শে জুন ২০২০ সূর্যগ্রহণ সম্পূর্ণ ভাবে নির্মূল করবে এই মহামারীকে। 

জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে যেমন একটি সূর্য গ্রহন ও ছয়টি গ্রহের একসাথে রাশি চক্রে ধনুরাশিতে অবস্থান এই মহামারীর করক হিসাবে ধরা হচ্ছে, ঠিক বর্তমান সময়ে গ্রহের শুভ অবস্থান ও ২১ শে জুন ২০২০ সূর্যগ্রহন সব অশুভের সমাপ্ত করবে। কারণ শাস্ত্রমতে বছরের একটি সূর্য গ্রহন থেকে আরেকটি সূর্য গ্রহণ অবধি সময়টি কিছু খারাপ জিনিসকে জাগিয়ে তোলে, আবার নিজে থেকে নির্মূল করে দেয়। আর করোনা মহামারী কে নির্মূল করতে এই বছর ২০২০ তে তিন তিনটি গ্রহণ হবে। শেষে আরেকবার বলি সূর্যগ্রহন ও অশুভ গ্রহের অবস্থান যেমন করোনা নামক মহামারী সৃষ্টি করেছে তেমনি রাশিচক্রে দ্বিতীয় সূর্যগ্রহণ ও শুভ গ্রহের অবস্থান এই মহামারীকে নির্মূল করবে। এরপরে আবার ১০০ বছর পরে মহামারী কিআকার নেবে তানিয়ে পরে আমি জ্যোতিষ গবেষণা ও জ্যোতিষবিদের সাথে আলোচনা করে আপনাদের সামনে হাজির করব আশা রইলো। 

*** ইশ্বরের কাছে আমার এটাই প্রার্থনা এই মহামারী সরে গেলে যেনো সকলকে সুস্থ জীবনে ফিরে আসেন।
আর যদি কোনো ভাব মানব জাতির দ্বারা কোনো ভুল হয়ে থাকে সেটা ইশ্বর যেনো ক্ষমা করে দেন...








No comments:

Post a Comment