কর্কট রাশির লোকেদের জন্যে অদ্ভূত চমৎকারী কিছু টোটকা । Cancer Sign Astrological Remedies - Astro Luck

Breaking

May 26, 2020

কর্কট রাশির লোকেদের জন্যে অদ্ভূত চমৎকারী কিছু টোটকা । Cancer Sign Astrological Remedies

কর্কট রাশির লোকেদের জন্যে কিছু চমৎকারী টোটকা দেয়া হলো। যার প্রয়োগের মাধ্যমে এই রাশির লোকেদের জীবনথেথেক সকল সমস্যা দূর হয়ে যাবে। কিন্তু টোটকা গুলি সঠিক ভাবে পালন করতে হবে তাহলেই সম্পূর্ণ ফলাফল মিলবে।

১) নৌকায় করে কোনো নদীর বা গঙ্গার মাঝে গিয়ে একটি তামার পয়সা প্রণাম করে নদীতে বিসর্জন দিন সাথে ইস্ট দেবতাকে প্রণাম করুন।
২) নিজের মায়ের থেকে বা মাতৃ স্থানীয় কারো থেকে এক মুঠো চাল ও একটি রুপোর পয়সা বা রুপোর টুকরো নিজের কাছে রাখুন। আর্থিক উন্নতি হবে। 
৩) নিজের থাকার ঘরে একটি তামার পয়সা রাখুন। 
৪) প্রতি সোমবার রুপোর গ্লাসে দুধ ও জল খান। দেখবেন শারীরিক রোগ ব্যাধি দূর হয়ে গেছে। 
৫) যখন আপনার নতুন বাড়ি নির্মাণ করবেন সেই বাড়ির দেয়ালে একটি রুপোর ইট বা রুপোর পয়সা ঢুকিয়ে দিন। 
৬) একটি পাত্রে কিছুটা চাল, দুধের প্যাকেট ও একটি রুপোর গলার চেন নিজের মেয়েকে বা অন্য কোনো মেয়েকে ডেকে দান করুন। কিন্তু দানটি শুক্রবারে করতে হবে। 
৭) কোনো মন্দিরে বা তীর্থ স্থানে গিয়ে গরিব-দুঃখী দের গম, গুড় ও তামা দান করতে হবে। 
৮) প্রতিদিন কালীমাতার উপাসনা করুন সাথে প্রতি শনিবার কুমারী মেয়েকে কিছু খাদ্য দান করুন। 
৯) কোনো দিনও সাদা দ্রব্যের ব্যবসা করবেন না। 
১০) যেকোনো কাজে যাওয়ার আগে মাকে প্রণাম করে কাজে যাবেন। যদি এই নিয়মটি মানতে সমস্যা থাকে তাহলে কালী মাতার ছবি বা মূর্তি কে প্রণাম করে কাজে যেতে পারেন। 
১১) যেখানে ধার্মিক কর্ম হচ্ছে সেখানেই যোগদান দেবেন। 
১২) কোনো বয়স্ক মানুষকে তীর্থ যাওয়ার জন্যে সাহায্য করবেন। পারলে নিজেও একবার তীর্থ ভ্রমণ করবেন। 
১৩) নিজের গোপন কথা, সংসারের কথা বা কর্ম ক্ষেত্রের কথা কাউকে বলবেন না। 
১৪) যদি আপনি খরগোশ পোষেন তাহলে সেটা বাড়ির ভিতরে আনবেন না। বাড়ির বাইরে রাখুন। 
১৫) সকল লোককে জল খাইয়ে বা দরিদ্র মানুষের সেবা করুন। 
১৬) আপনার বয়স যখন ২৭ হবে তার পরে আপনি বিবাহ করবেন। 
১৭) পূর্বপুরুষের নামে কিছু খাবার পাখি বা যেকোনো পানিতে খাওয়া। 
১৮) সূর্য প্রণাম করুন সাথে। রবিবার ইস্ট দেবার পূজা করুন।
১৯) ধর্মস্থানে সব সময় খালি পায়ে যাবেন।
২০) যদি আপনি ডাক্তারি পেশায় থাকেন তাহলে আপনি প্রতি শনিবার বিনা মূল্যে রোগীর চিকিৎসা করুন।
২১) যদি আপনি বাড়ি বানানোর কথা ভেবে থাকেন তাহলে তা ২৪ বছর বয়সের পরে নিজের বাড়ি বানাবেন।

*** উপরের নিয়ম গুলি সঠিক ভাবে মানতে পারলে আপনার জীবনের সকল সমস্যার সমাধান হবে। কিন্তু নিয়ম গুলি মানার পরেও সমস্যা না কমে তাহলে আপনি একজন পেশাদার জ্যোতিষের পরামর্শ নেবেন ।

No comments:

Post a Comment