তন্ত্রশাস্ত্র মতে বশীকরণ কিভাবে করা হয় - Astro Luck

Breaking

February 13, 2021

তন্ত্রশাস্ত্র মতে বশীকরণ কিভাবে করা হয়

বশীকরণ সম্বন্ধে মানুষের মনে অনেক ভ্রান্ত ধারণা প্রচলিত আছে। অনেকে মনে করেন যে কোনো ব্যক্তিকে করা যায়। প্র্রকৃতপক্ষে তারা এখানেই সব চেয়ে বড় ভুল করে থাকেন। বাস্তবে বশীকরণ তাকেই করা সম্ভব যে আপনার খুব কাছে বা নিকটে আছে। অর্থাৎ আপনার কোনো নিকট ব্যক্তি বা অতি পরিচিত কারোর ওপরেই আপনি বশীকরণ প্রয়গ করতে পারবেন। 

কাকে করবেন বশীকরণ : - 

বাস্তবে বশীকরণ হলো বিশেষ প্রয়াগ কৌশল যুক্ত একটা মাধ্যম, যার দ্বারা আপনি আপনার অতি পরিচিত কাউকে আপনার আকর্ষণের মধ্যে টেনে আনতে পারে। বশীকরণ করার জন্যে দুই তিনটি পরিস্তিতি বা শর্তের প্রয়গ আবশ্যক। প্রথমত: আপনি যাকে বশীকরণের মধ্যে আনতে চাইছেন তার সাথে আপনার বিশেষ পরিচয় থাকে আবশ্যক। দ্বিতীয়ত : আপনি যখন তার সাথে কথাবার্তা বলেন তখন তারসাথে সম্পর্ক এতটাই নিকট হয় যাতে প্রয়জন পড়লে আপনি তাকে স্পর্শ করতে পারেন। 

যে ক্ষেত্রে উক্ত তিনটি শর্ত পালিত হবে সেক্ষেত্রেই আপনি বশীকরণ প্রয়োগ করতে পারেন। কিন্তু একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন, যে ক্ষেত্রে উক্ত তিনটি শর্তের মধ্যে কোনো একটি শর্ত পালিত হাতে বাকি থাকবে সেক্ষেত্রে বশীকরণ করাটাও যথেস্ট কঠিন হয়ে পরে। দূরবর্তী স্থানের লোক বা অপরিচিত কোনো ব্যক্তিকে বশীকরণ করা যায় না। যদি তা করা সম্ভব হতো তাহলে কোনো তান্ত্রিক বা জোতিষী কোনো নেতা-নেত্রী বা নায়ক-নায়িকা বা কোনো উচ্চ পদস্থ মন্ত্রীদের নিজের বাসিকরানে করে তাদের দিয়ে সব কাজ করিয়ে নিতে পারত। কিন্তু বাস্তবে তা সম্ভব নয়। বশীকরণ সম্ভব হয় বা বশে আনার একটি প্রয়াস মাত্রা। বশীকরণের ক্ষেত্রে যে ব্যক্তি মাধ্যম হবে তার মানসিক শক্তি প্রচণ্ড শক্তিশালী হাওয়া উচিত। সে যাকে বশীকরণ করতে চাইছে তার প্রতি সমস্ত শক্তি দিয়ে মনঃসংযোগ করতে হবে। অর্থাৎ যে ব্যক্তি বশীকরণ করছে এবং যাকে বশীকরণ করা হচ্ছে তাদের মধ্যে যেন দৃষ্টি সংযোগ Eye Contact থাকে। 

কি ভাবে করবেন বশীকরণ :-

আপনি যাকে বশীকরণ করতে চাইছেন তার সম্বন্ধে গত এক মাসের পূর্ব বিবরণ সংগ্রহ করুন। অর্থাৎ গত এক মাসে সে কি কি করেছে ? কোথায় কোথায় গেছে ? কার কার সাথে মেলামেশা করেছে ? এই সময়ে গুরুত্বপূর্ণ ও উল্লেখযোগ্য কি কি কাজ করেছে ? ইত্যাদি ইত্যাদি। এরপর আপনাকে আরো তিনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস জানতে হবে। 

১) সে কোন রঙের বস্ত্র পরিধান করতে সর্বাধিক ভালোবাসে ?
২) সে কোন খাবারটি খেতে সবথেকে ভালোবাসে ?

৩) দিনে বেশিরভাগ সময় সেই ব্যক্তি কোথায় বা কোন জায়গায় কাটায় ?

এই তিনটি তথ্য জানার পরেই শুরু করা যাবে মূল বশীকরণ পক্রিয়াটি। যাকে বশীকরণ করা হবে তারা পছন্দের বর্নেরই তিনটি ফুল ( কিন্তু তাদের জাতগুলি পৃথক পৃথক হাতে হবে এবং প্রতি জাতের একটা করে ফুল নিতে হবে )সংগ্রহ করতে হবে। যেমন ধরুন কেউ হয়ত লাল রঙ পছন্দ করেন। তাহলে তাকে বশীকরণ করতে হলে প্রথমেই লাল রঙের তিনটি ফুল সংগ্রহ করতে হবে যাদের যতগুলি পৃথক হবে। এই জন্যে আপনি একটি লাল জবা, একটি কৃষ্ণচূড়া, একটি লাল গোলাপ সংগ্রহ করতে  পারেন। 

এরপরে সে যে খাবারটি খেতে সবচেয়ে বেশী পছন্দ করে সেই খাবারটি তৈরী করুন কিংবা সংগ্রহ করুন। 

এরপর একটি ভোজপাতায় ময়ূরের পালক দিয়ে কুমকুম সহযোগে যাকে বশীকরণ করতে চাইছেন তার নাম, তার বাবার নাম ও তার গোত্র ক্রমানুযায়ী একুশ বার লিখে ফেলুন। লেখা হয়ে গেলে ভোজপত্রটিকে  ঐ খাবারের মধ্যে রেখে দিন। এইসময়েই সংগৃহিত ফুল তিনটিকেও ঐ খাবারের মধ্যেই রেখে দিন। এর প্রায় আধ ঘন্টা পর ভোজ পাতা ও ফুল তিনটিকে একসাথে খাবারের মধ্যে রেখে দিন। এর প্রায় আধ ঘন্টা পরে  ভোজ পাতা ও ফুল তিনটিকে একসাথে খাবার থেকে বার করে নিন। এই খাবারটিকে এবার সেই ব্যক্তির প্রিয় স্থানে নিয়ে গিয়ে তার চোখে চোখ রেখে উপহার স্বরূপ তাকে দিন এবং খাবারটি খেয়ে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করুন। তারপরে ঐ ফুল তিনটিসহ ভোজ পাতাটিকে কোনো নদীর জলে বা সরোবরে ভাসিয়ে দিন। তবে মনে রাখবেন এই কাজটি তখনি হবে যখন আপনি কারোর ক্ষতির কথা চিন্তা না করে কাজটি সম্পন্য করবেন। এই ধরনের প্রয়াগ সর্বদাই কল্যাণপ্রদ কার্যে প্রয়াগ করা উচিত, আর লক্ষ রাখা উচিত এতে যেন কেউ ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। তবেই এই শক্তি শালী ও পরীক্ষিত প্রয়াগটি নিশ্চিত ফল দেবে। 

No comments:

Post a Comment